বাংলাদেশ, বৃহস্পতিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২১

শিরোনাম

জানুয়ারি মাসে অনুষ্ঠিত হবে স্থগীত হওয়া চসিক নির্বাচন : ৩০ ও ৩৭নং ও সংরক্ষিত ৬নং ওয়ার্ডে পুনঃতফসিল


প্রকাশের সময় :১২ নভেম্বর, ২০২০ ৫:৩২ : পূর্বাহ্ণ

ডেস্ক নিউজ : করোনা মহামারির কারণে স্থগীত হওয়া চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের (চসিক) নির্বাচন ডিসেম্বর মাসের পরিবর্তে আগামী জানুয়ারি মাসের ২য় বা ৩য় সপ্তাহে অনুষ্ঠিত হতে পারে৷ ডিসেম্বর মাস জুড়ে চট্টগ্রামের ১১টি পৌরসভায় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে তাই জানুয়ারি মাসে চসিক নির্বাচন আয়োজনের পরিকল্পনা নিয়ে করছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)।

নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ের অতিরিক্ত সচিব অশোক কুমার দেবনাথ গণমাধ্যমকে জানিয়েছেন, ‘ইতিমধ্যে ঘোষিত সিডিউলের হিসেবে আগামী ডিসেম্বর মাস জুড়ে আমাদেরকে পৌরসভা নির্বাচন নিয়ে ব্যস্ত থাকতে হবে। এছাড়া ডিসেম্বর মাসে মহান বিজয় দিবস ও বড় দিনের উৎসব ও ছুটি রয়েছে। সবমিলিয়ে ডিসেম্বর মাসে চসিক নির্বাচন আয়োজনের মতন কোন সিডিউল খালি নেই। তাই জানুয়ারি মাসেই চসিক নির্বাচন আয়োজন করা হতে পারে।’

নির্বাচন কমিশন সচিবালয় জানিয়েছেন, যেহেতু আগামী ৬ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত চসিক’র বর্তমান প্রশাসকের মেয়াদ রয়েছে, তাই নির্বাচন কমিশনাররা চসিক নির্বাচন নিয়ে তাড়াহুড়া করতে চাইছেন না। সেক্ষেত্রে চট্টগ্রামের ১১টি পৌরসভা নির্বাচনের পরই চসিক নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।।

চট্টগ্রামের আঞ্চলিক নির্বাচনী কর্মকর্তা হাসানুজ্জামান সিক্সটিন বাংলাকে জানিয়েছেন, স্থগিত হওয়া চসিক নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে বিদ্যমান তফসিলে। কেবল মাত্র নগরীর দুইজন সাধারন কাউন্সিলর প্রার্থী ও একজন সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর প্রার্থী মারা যাওয়ায় সেই ওয়ার্ড গুলোতে  পুনঃতফসিল ঘোষণা করা হবে।

উল্লেখ্য, স্থগীত নির্বাচনে আওয়ামী লীগ সমর্থিত দুই কাউন্সিলর প্রার্থী ৩০ নম্বর পূর্ব মাদারবাড়ী ওয়ার্ডে মাজহারুল ইসলাম চৌধুরী ও ৩৭ নম্বর উত্তর মধ্যম হালিশহর ওয়ার্ডে মো. হোসেন মুরাদ মারা যাওয়ায় এবং বাকলিয়া এলাকার ১৭, ১৮ ও ১৯ নং ওয়ার্ডের (সংরক্ষিত-৬) সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর প্রার্থী শাহেদা বেগম (৫৫) মারা গেছেন৷

গত ২৯ মার্চ চসিক নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু করোনা পরিস্থিতির কারণে ২১ মার্চ ভোট স্থগিত করে নির্বাচন কমিশন। গত ৫ আগস্ট চসিকের মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীনের নেতৃত্বাধীন নির্বাচিত পরিষদের মেয়াদ শেষ হওয়ার আগে প্রশাসক নিয়োগ দেয় স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়। ৬ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত প্রশাসকের মেয়াদ রয়েছে।

স্থগিত হওয়া চসিক নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মেয়র প্রার্থী ছিলেন রেজাউল করিম চৌধুরী। অন্যদিকে বিএনপি থেকে প্রার্থী হন ডা. শাহাদাত হোসেন সহ আরো পাঁচজন মেয়র প্রার্থী ছিলেন। এছাড়া ৪১টি ওয়ার্ডে সাধারণ ও সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলরের ৫৫টি পদে ২৬৯ জন প্রার্থী ছিলেন।

ট্যাগ :