বাংলাদেশ, রোববার, ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২১

শিরোনাম

দলীয় পরিচয়ে কাউন্সিলর নির্বাচনের প্রচারণার বিষয়ে ইসির কড়া হুঁশিয়ারি


প্রকাশের সময় :১৮ জানুয়ারি, ২০২১ ৭:৫৪ : পূর্বাহ্ণ

চসিক নির্বাচনের শেষ পর্যায়ে এসে নির্বাচন কমিশনের আইন অনুযায়ী কাউন্সিলর পদে দলীয় মনোনয়নের বিধান নেই জানিয়ে প্রচার-প্রচারণায় দলীয় মনোনয়নের কথা ব্যবহার না করতে প্রার্থীদের সতর্ক করে দিয়েছে নির্বাচন কমিশন। যেসব প্রার্থী নিজেদের পোস্টার ব্যানারে দলীয় মনোনয়নের কথা উল্লেখ করেছেন সেসব ব্যানার পোস্টার নামিয়ে ফেলতে প্রার্থীদের কড়া নির্দেশও দেওয়া হয়েছে নির্বাচন কমিশনের তরফ থেকে। আর এই বিষয় তদারকির জন্য নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটদেরও নির্দেশ দিয়েছে নির্বাচন কমিশন।

চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে কাউন্সিলর পদে আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন ও বিদ্রোহী প্রার্থী কাউন্সিলর পদে দলীয় মনোনয়ন ইস্যুতে কঠোর অবস্থানে গেছে নির্বাচন কমিশন।
এতে বিগত কয়েকদিনের ঘটনাক্রমে খানিকটা চুপসে যাওয়া ‘বিদ্রোহী’ প্রার্থীদের অবস্থান ফের চাঙ্গা হয়ে উঠছে। আগের মতই সরব প্রচার প্রচারণা চালিয়ে যাওয়ার পাশাপাশি নির্বাচন নিয়ে নিজেদের লড়াকু মনোভাবের কথাই বলছেন এতদিন আওয়ামী লীগের ভাষায় ‘বিদ্রোহী’ হিসেবে আলোচিত হয়ে আসা এসব প্রার্থী।

সম্প্রতি গণমাধ্যমে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া দলীয় মনোনয়ন প্রসঙ্গে বলেন, ‘স্থানীয় পর্যায়ে নির্বাচনে কাউন্সিলর কিংবা কমিশনার প্রার্থী যারা হয়েছেন, সেখানে প্রার্থীরা আমাদের দলের হতে পারে, কিন্তু আমাদের দল কর্তৃক মনোনীত কোনো প্রার্থী তারা নন।’

এ ব্যাপারে চট্টগ্রামের আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তা মোঃ হাসানুজ্জামান বলেন, ‘কাউন্সিলর পদে দলীয় মনোনয়নের কথা বলে কারও ব্যানার-পোস্টার লাগানোর সুযোগ নেই। কেউ এটা করলে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য বলা হয়েছে।’
যদিও এর আগেই কাউন্সিলর পদে দলীয় মনোনয়ন ও বিদ্রোহী প্রার্থীকে ইস্যু করে ঘঠে গেছে কিছু অনাঙ্কিত ঘঠনা ও ঝরে গেছে দুটি প্রাণ।
আওয়ামী লীগ ও নির্বাচন কমিশনের এমন অবস্থানের পর অনেকটাই পরিবর্তন হয়ে গেছে নির্বাচনী প্রেক্ষাপট।
নির্বাচনের সর্বশেষ পরিস্থিতি সম্পর্কে জানতে চাইলে ৩৩ নং ফিরিঙ্গিবাজার ওয়ার্ড থেকে ‘মিষ্টি কুমড়া’ প্রতীক নিয়ে কাউন্সিলর প্রার্থী হওয়া হাসান মুরাদ বিপ্লব বলেন, ‘আমরা শুরু থেকেই বলছিলাম কাউন্সিলর পদে দলীয় মনোনয়নের সুযোগ নেই। দেরিতে হলেও নির্বাচন কমিশন একই কথা বলছে। আমাদের দলের দপ্তর সম্পাদক বিপ্লব বড়ুয়াও আওয়ামী লীগের অবস্থান স্পষ্ট করেছেন। আমি নির্বাচন করছি। আর মেয়র পদে দলের প্রার্থীর জন্যও আমরা কাজ করছি।’
চসিক নির্বাচনে কাউন্সিলর পদে ‘দলীয় মনোনয়ন’ দেয় আওয়ামী লীগ ও বিএনপি। আওয়ামী লীগের ক্ষেত্রে ৪১টি ওয়ার্ডের মধ্যে ১৩টি ওয়ার্ডের সাবেক কাউন্সিলররা দলীয় মনোনয়ন পাননি। সেখানে শুধু একজন বিদ্রোহী প্রার্থী ১৩নং পাহাড়তলী ওয়ার্ডের সাবেক কাউন্সিলর মোঃ হোসেন হিরণ তার মনোনয়ন প্রত্যাহার করে নিয়েছেন। বাকি ১২ জন বিদ্রোহী হিসেবে নির্বাচন করছেন। এর মধ্যে একজন করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা যান। অন্য একজন ২৫ নম্বর ওয়ার্ডের সাবেক কাউন্সিলর এরশাদ উল্ল্যাহ নির্বাচন থেকে ‘সরে দাঁড়ান’।
বাকি ১০ জন নির্বাচনে নিজেদের অবস্থানে অনড় রয়েছেন। তারা হলেন ১ নম্বর দক্ষিণ পাহাড়তলীওয়ার্ডের তৌফিক আহমেদ চৌধুরী, ২ নম্বর জালালাবাদে সাহেদ ইকবাল বাবু, ৯ নম্বর উত্তর পাহাড়তলীতে জহুরুল আলম জসীম, ১১ নম্বর দক্ষিণ কাট্টলীতে মোরশেদ আক্তার চৌধুরী, ১২ নম্বর সরাইপাড়া ওয়ার্ডে সাবের আহমেদ, ১৪ নম্বর লালখান বাজারে এফ কবির মানিক, ২৭ নম্বর দক্ষিণ আগ্রাবাদে এইচএম সোহেল, ২৮ নম্বর পাঠানটুলীতে আব্দুল কাদের, ৩১ নম্বর ওয়ার্ডের তারেক সোলায়মান সেলিম এবং ৩৩ নম্বর ফিরিঙ্গীবাজারে হাসান মুরাদ বিপ্লব।

 

ট্যাগ :